সিলেটেজুড়ে অলস টাকায় বিলাসবহুল বাড়ি: থাকছেন কেয়ারটেকার

অভিমত রিপোর্ট অভিমত রিপোর্ট

প্রকাশিত: ২৫ জুলাই ২০২১, ৬:৫৪ অপরাহ্ণ

সিলেটের ইসলামপুর এলাকায় প্রায় আট একর জায়গাজুড়ে নির্মাণ করা হয়েছে ‘কাজি ক্যাসল’। সবচেয়ে ব্যয়বহুল বাড়ি হিসেবে সিলেটসহ সারাদেশেই আলোচনায় রয়েছে এই বাড়িটি। সিলেটের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এই বাড়িটি নির্মাণ করেছেন আল হারামাইন গ্রুপের কর্ণধার মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমান নাসির। বিলাসবহুল এই বাড়িটিতে বর্তমানে আল হারামাইন গ্রুপের কর্ণধার মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমান নাসিরের ভাই বসবাস করেন। এছাড়া পুরো বাড়িটি দেখভালের জন্য মোট ১৭ জন তত্ত্বাবধায়ক রয়েছেন। এমনকি পুরো বাড়ির নিরাপত্তায় পাঁচজনেরও বেশি নিরাপত্তা প্রহরী কাজ করে যাচ্ছেন। সিসি ক্যামেরা নিয়ন্ত্রণের জন্যও রয়েছেন বেশ কয়েকজন। বর্তমানে নিরাপত্তার স্বার্থে কাউকেই প্রবেশ করতে দেওয়া হয় না। এমনকি কোনো ধরণের ছবিও তুলতে দেওয়া হয় না।

প্রায় ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এই প্রাসাদসম বাড়িটির নির্মাণশৈলী দেখে মুগ্ধ সবাই। এই বাড়িটিতে হেলিপ্যাড, সুইমিংপুল, স্টিমবাথ, লিফটসহ আধুনিক স্নানাগার রয়েছে। ২৯টি মাস্টার বেডের ডিজাইন করা হয়েছে ২৯টি দেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের আলোকে। চার দেশের প্রকৌশলীর নির্মাণশৈলীতে প্রায় আড়াইশ নির্মাণ শ্রমিকের আট বছরের পরিশ্রমে বাড়িটি নির্মিত হয়েছে। এই বিলাসবহুল বাড়িটিতে কৌতূহলে এক সময় ভিড় জমাতেন সিলেটের অনেকেই। তবে এখন নিরাপত্তার স্বার্থে কাউকেই প্রবেশ করতে দেওয়া হয় না।

প্রবাসী অধ্যুষিত অঞ্চল হিসেবে গোটা বাংলাদেশেই সিলেটের নামডাক রয়েছে। সিলেটের এই প্রবাসীরা বছরে এক-দুইবার বাড়িতে আসেন। নিজেদের থাকার জন্য তৈরি করেন বিলাসবহুল বাড়ি। শুধু শহরতলীতেই নয় সিলেটের গ্রামে গ্রামেও রয়েছে প্রাসাদসম বাড়ি। এসব আধুনিক অট্টালিকা আগেরকার রাজপ্রাসাদকেও হার মানাবে। এসবের মালিক সবাই থাকেন প্রবাসে। কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত বাড়িগুলোতে রয়েছে আধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা।

বাড়িগুলোর প্রবেশমুখে রয়েছে কারুকার্যময় ফটক, চারদিকে টাইলস ও মার্বেলসহ সীমানা প্রাচীর। ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা দিয়ে পুরো বাড়ি পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা, রয়েছে প্রতিটি কক্ষে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র। সিলেটে নির্মিত এসব বিলাসবহুল বাড়িগুলোর বেশিরভাগই নির্মিত হয়েছে আট একর থেকে ১৫ একর জায়গাজুড়ে।

এমন বিলাসবহুল বাড়ি শুধু সিলেট শহর ও শহরতলীতেই রয়েছে এমনটা নয়। সিলেটের বিশ্বনাথ, বালাগঞ্জ, ওসমানী নগর, গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, মৌলভীবাজার সদর, রাজনগর, হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর ও ছাতকেও রয়েছে এমন বিলাসবহুল বাড়ি। এসব বাড়ির মধ্যে অনেক বাড়িই রয়েছে যেগুলো নির্মিত হয়েছে লন্ডনের অনেক বাড়ির আদলে। ওই এলাকাগুলোর বাড়ি নির্মাণেও খরচ হয়েছে কোটি টাকার ওপরে। এসব বাড়ির বেশিরভাগই বাইরে থেকে যাতে দেখতে না পাওয়া যায় সেজন্য প্রবেশমুখেই লাগানো রয়েছে লোহার বিশাল বড় গেট।

সিলেটের ওসমানীনগরের বিলাসবহুল বাড়ি শান্তিনীড়। আভিজাত্য, নান্দনিকতা আর আধুনিক সকল সুযোগ সুবিধা নিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে বাড়িটি। বিলাসবহুল দৃষ্টিনন্দন বাড়িগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি। শুধু নামেই শান্তিনীড় এমনটা নয়। দুই তলা এই বাড়িটির নির্মাণশৈলী আর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যও মন কাড়বে যে কারও। বাড়িটি দেখতে প্রায়ই ভিড় করেন দর্শনার্থীরা। এই বাড়িটির মালিক লন্ডন প্রবাসী মোহাম্মদ আব্দুর রব মল্লিক। এই বাড়িটিতে রয়েছে ২০টি কক্ষ ও দেশি-বিদেশি কাঠের কারুকাজ।  বাড়িটির ভেতরেও রয়েছে সুইমিংপুলের সুবিধা। এছাড়াও ভেতরে রয়েছে গাছ দিয়ে ঘেরা পিচঢালা সড়ক। আর লেকে যাওয়ার জন্যও রয়েছে দৃষ্টিনন্দন একটি সেতু।

তবে পুরো সিলেটজুড়ে এমন বিলাসবহুল বাড়ির নির্দিষ্ট সংখ্যা কত তার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই কোথাও।